• বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন

কুমারখালীতে পল্লী বিদ্যুতের ৬৭ টি ট্রান্সফরমার চুরি ঃ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে কৃষকেরা

অনলাইন ডেক্স / ৩১ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

কুমারখালীতে ১৬ মাসে পল্লী বিদ্যুতের ৬৭ টি ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। একটি বাদে সবগুলো ট্রান্সফরমারই কৃষিকাজে ব্যবহৃত সেচ প্যাম্পের। এর ক্ষতির পরিমান ২৯ লাখ ২০ হাজার টাকা প্রায়। বার বার চুরির ঘটনায় চরম বিপাকে পড়েছে কৃষকরা।
পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তারা বলছেন, প্রতিটি চুরির ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো চোর ধরা পড়েনি। মালামালও উদ্ধার হয়নি। চোরের কাছে অসহায় তারা।
কুমারখালী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জোনাল কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, ২০২২ সালের মে মাস থেকে চলতি বছরের ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৬৭ টি ট্রান্সফরমার চুরির ঘটনা ঘটে। তারমধ্যে ৫৫ টি-৫ কেভিএ। যার মূল্য ২২ লাখ টাকা। আর ১০ কেভিএ ১২ টি ট্রান্সফার, যার মূল্য ৭ লাখ ২০ হাজার টাকা। চুরি যাওয়া যাওয়া ট্রান্সফরমারের মধ্যে মাত্র একটি আবাসিক এলাকার। আর বাঁকী সব কৃষিকাজে ব্যবহৃত সেচ প্যাম্পের।
বুধবার উপজেলার জোতমোড়া গ্রামের কৃষক আমির ফরায়েজি বলেন, সকালে মাঠে গিয়ে দেখেন, তার সেচ প্যাম্পে বিদ্যুৎ নেই। ট্রান্সফরমারও খুঁটিতে নেই। খোলস পড়ে আছে, ভিতরের কয়েল ও তেল নেই।
গত ১৪ আগষ্ট রাতে যদুবয়রা ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের মাঠে কৃষক মো. আকরাম হোসেনের সেচ প্যাম্পর ১০ কেভিএ একটি ট্রান্সফরমার চুরির ঘটনা ঘটে। এবিষয়ে তিনি বলেন, ছয় মাসে দুইবার তাঁর ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। একটি ট্রান্সফরমারের দাম ৬০ হাজার টাকা। তার ভাষ্য, চুরির আতঙ্কে রাতে ঘুম হয়না। তিনি নিরাপত্তা বাড়ানোর দাবি জানান।
যদুবয়রা পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তা কামরুজ্জামান বলেন, মঙ্গলবার রাতেও একটি ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। এনিয়ে তার এলাকায় চলতি বছরে ৬টি চুরির ঘটনা ঘটেছে। সবগুলোই কৃষকদের। এতে কৃষকরা খুবই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

কুমারখালী পল্লী বিদ্যুত সমিতির জোনাল কার্যালয়ের কর্মকর্তা (ডিজিএম) মো. আনসার উদ্দিন জানান, একটি সংঘবদ্ধ চক্র নিয়মিত ট্রান্সফরমার চুরি করছে। থানায় অভিযোগ দিয়েও কোনো কাজ হচ্ছে না। চলতি বছরে ৩৯ টিসহ গত ১৬ মাসে ৬৭ টি চুরির ঘটনা ঘটেছে। এতে ৩০ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে। চক্রটি পরিকল্পিত ভাবে ফাঁকা ও নির্জন মাঠের সেচ প্যাম্পের ট্রান্সফরমার চুরি করছে। চক্রটির কাছে পল্লী বিদ্যুৎ ও কৃষক অসহায় হয়ে পড়েছে।
কুমারখালী থানার পরিদর্শক ( তদন্ত) সুকল্যাণ বিশ্বাস বলেন, দক্ষ লোক ছাড়া কেউ ট্রান্সফরমার চুরির কাজ করতে পাওে না। পুলিশ গভীরভাবে অভিযান চালাচ্ছে। খুব দ্রুতই চক্রটি সনাক্ত করবেন তারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ