• রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৬:৩৭ অপরাহ্ন

মানবিক সেবা সংঘের উদ্যোগে জোসনা খাতুন পেল মাথা গোঁজার বসতঘর

মাহমুদ শরীফ / ৩৪ Time View
Update : শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

আর্থসামাজিক সেবা সংস্থা মানবিক সেবা সংঘের উদ্যোগে বিভিন্ন স্তরের দাতাদের আর্থিক সহযোগিতায় অসহায় গৃহহীন জোসনা খাতুন পেল মাথা গোঁজার মত একটি বসতঘর। কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী পৌর এলাকার এলঙ্গি পাড়ায় বসবাসরত মোছাঃ জোসনা খাতুন। স্বামী কে এম সিদ্দিকুর রহমানের মৃত্যু হয়েছে অনেক আগেই। ১টা মাত্র মেয়ে তার। ছেলে নেই। জীর্নশীর্ন ভাঙ্গাচুরা ঘরে বসবাস করতেন বিধবা জোসনা। ঝড় বৃষ্টির দিনে নির্ঘুম রাত কাটতো তার। অন্যের বাড়ী ঝি এর কাজ জোসনার পেশা। তার অসহায়ত্বের বিষয়টি আর্থসামাজিক সেবা সংস্থা মানবিক সেবা সংঘের নজরে আসে। মানবিকতার উজ্জল দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করতে ছুটে আসে এই সংস্থাটি। অসহায় বিধবা জোসনার শান্তিতে ঘুমানোর জন্য একটি ঘর নির্মাণের উদ্যোগ নেয় মানবিক সেবা সংঘের সদস্যরা। ১ রুম বিশিষ্ট মেঝে পাকাকরণ করে অত্র বসতঘরটি উপহার দিয়েছে সংস্থাটি। কয়েক হাজার টাকা ব্যয়ে গৃহনির্মাণ করে দেয় তারা। ২২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকালে দোয়া অনুষ্ঠানের মাধ্যমে উপকারভোগি জোসনার নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে ঘরটি। গৃহটি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক কুমারখালী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আফজাল হোসাইন। মানবিক সেবা সংঘের চেয়ারম্যান আকমল হোসাইনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন কুমারখালী এম এন হাইস্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন শিক্ষক তোফাজ্জেল হোসেন, আইউব আলী, আমিরুল ইসলাম, আঃ আজিজ, সোবহান আলী, তরুন হোসেন, কলম শেখ, আঃ বারী, মসলেম উদ্দিন প্রমূখ। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা তোফাজ্জেল হোসাইন। এসময় মানবিক সেবা সংঘের চেয়ারম্যান আকমল হোসেন জানান, সমাজের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমাদের নৈতিক দায়ীত্ব। এবছর কয়েকটি নিঃস্ব পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর পাশপাশি আমরা গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে গুরুত্ব দিচ্ছি। ইতিমধ্যেই বিভিন্ন স্থানে অভাবগ্রস্থ শতাধিক পরিবারকে নানাবিধ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। সমাজের বিত্তবানদের একাজে এগিয়ে আসার আহŸান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, মহান আল্লাহ যেন আমাদের এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টাকে কবুল করেন- এজন্য সবার দোয়া কামনা করি। বিধবা জোসনা খাতুন বলেন, ঘর ছিলো ভাঙাচোরা, বৃষ্টির পানি পড়তো, অনেক কষ্টে ছিলাম। ঘরটি পেয়ে আমি খু উ ব খুশি। এখন নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারবো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ