• মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০১:৫৪ অপরাহ্ন

লিবিয়ায় বন্যা ‘সাগরে ক্রমাগত আছড়ে পড়ছে লাশের পর লাশ’

অনলাইন ডেক্স / ৪৫ Time View
Update : শুক্রবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

লিবিয়ার দারনা শহরে ভয়াবহ বন্যায় হতাহতের বিষয়ে দেশটির পূর্বাঞ্চলীয় প্রশাসনের মন্ত্রী হিশাম চোকিওয়াত বলছেন, ‘সাগরে ক্রমাগত আছড়ে পড়ছে লাশের পর লাশ।’

আবার বহু মানুষ লাশের ব্যাগ জড়িয়ে ত্রাণ সহায়তার জন্য আকুতি জানাচ্ছে। আর নিহতদের অনেককে গণকবরে দাফন করা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় দানিয়েল রোববার আঘাত হানলে একটি বাঁধ ফেটে গেলে দারনা শহর বন্যার পানিতে তলিয়ে যায়।

উদ্ধার-কর্মীরা ভবনগুলোর ধ্বংসস্তূপের মধ্যে জীবিত মানুষের সন্ধান চালিয়ে যাচ্ছে।

হাসপাতাল আর মর্গগুলো সয়লাব হয়ে পড়েছে লাশে।

দারনার কাছে একটি হাসপাতালে কর্মরত লিবিয়ার চিকিৎসক নাজিম তারহনি বলছেন, আরো সহায়তা দরকার।

তিনি বলেন, ‘হাসপাতালে আমার অনেক বন্ধু আছে যারা তাদের পরিবারের সদস্যদের হারিয়ে আছে। তারা সবকিছু হারিয়েছে। আমার এমন লোকজন দরকার যারা পরিস্থিতি বুঝতে পারবে। প্রয়োজনীয় সহায়তা দরকার। এমন কুকুর প্রয়োজন যারা ঘ্রাণ শুঁকে মানুষ বের করে নিয়ে আসতে পারবে। আমাদের মানবিক সহায়তা দরকার। এমন মানুষ দরকার যারা জানে তারা কী করছে।’

তুর্কি গণমাধ্যমে লিবিয়ান ডক্টরস ইউনিয়নের প্রধান মোহাম্মেদ আল ঘৌস বলেছেন, সেখানে বিশেষায়িত ফরেনসিক ও রেসকিউ টিম দরকার। এছাড়া আরেক দল দরকার, যারা লাশ উদ্ধারে বিশেষজ্ঞ।

মেডিসিনস স্যান্স ফ্রন্টিয়ার্স (এমএসএফ) বলেছে, মেডিক্যাল সহায়তার প্রয়োজনীয়তা যাচাই করা এবং জরুরি মেডিক্যাল উপকরণ ও বডি ব্যাগ লিবিয়ার রেড ক্রিসেন্টকে দেয়ার জন্য একটি দল আজই সেখানে যাচ্ছে।

ওদিকে শহরের রাস্তাঘাট কাদা আর ধ্বংসস্তূপে ঢেকে আছে। রাস্তায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে তছনছ হয়ে যাওয়া অসংখ্য গাড়ি।

চোকিওয়াত বলেছেন, দারনা শহরের কিছু এলাকা একেবারেই হাওয়া হয়ে গেছে।

তিনি বলেন, ‘কল্পনা করুন একটি আবাসিক এলাকায় পুরো ধ্বংস হয়ে গেছে। আপনি এখন দেখতেই পারছেন না। এটা আর নেই। আমি এমন দৃশ্য এর আগে কখনো দেখিনি। এটা সুনামির জন্য হয়েছে।’

তাহা মুফতাহ ডেরনার একজন ফটোসাংবাদিক। তিনি বলেছেন, ২০১১ সাল থেকেই বিশেষজ্ঞরা বাঁধ নিয়ে সতর্ক করে আসছিলেন। কিন্তু কেউ এর জন্য কিছু করেনি। বাঁধটা বিমান হামলার মতো করে ধ্বংস হয়ে গেছে।

তিনি আরো বলেন, ‘পানি এখন বন্ধ হয়েছে এবং যা পড়ে আছে তা হলো ধ্বংসস্তূপ। বহু মানুষ এখনো পানিতে।’

লিবিয়ার ফুটবল ফেডারেশন জানিয়েছে, কয়েকজন নামী খেলোয়াড়ের মৃত্যু হয়েছে।

তারা চারজন ফুটবলারের নামও প্রকাশ করেছে- শাহিন আল জামিল, মন্দার সাদাকা, সালেহ সাসি ও আইয়ুব সাসি।

রোববারের ঝড়ে সৌশা, আল মারজ ও মিসরাতা শহরও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তেল সমৃদ্ধ দেশ লিবিয়া ২০১১ সালে মুয়াম্মার গাদ্দাফির মৃত্যুর পর থেকেই রাজনৈতিক সঙ্কটের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে। এর একটি সরকার আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃত, যা রাজধানী ত্রিপোলি ভিত্তিক। আরেকটি সরকার পূর্বাঞ্চল নিয়ন্ত্রণ করছে।

দারনা শহরটি বেনগাজির ২৫০ কিলোমিটার পূর্ব দিকে। গাদ্দাফির পতনের পর ওই শহরটি ছিল কট্টরপন্থী ইসলামিক স্টেটের একটি ঘাঁটি।

পরে লিবিয়ান ন্যাশনাল আর্মি (এলএনএ) তাদের বিতাড়িত করে। এলএনএ পূর্বাঞ্চল নিয়ন্ত্রণকারী প্রশাসনের ঘনিষ্ঠ জেনারেল খালিফা হাফতারের প্রতি অনুগত।

প্রভাবশালী এই জেনারেল বলেছেন, বন্যার কারণে হওয়া ক্ষয়ক্ষতি তারা নিরূপণ করছেন।

লিবিয়ার আল ওয়াসাত নিউজ ওয়েবসাইট বলছে, বহু বছর ধরে দারনা শহরের রাস্তাঘাটের পুনর্নির্মাণ বা সংস্কার না হওয়ায় নিহতের সংখ্যা এত বেশি হয়েছে।
সূত্র : বিবিসি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ