• শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন

কন্ঠশিল্পী ফরিদা পারভীন—

অনলাইন ডেক্স / ৪২ Time View
Update : বুধবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

কন্ঠশিল্পী ফরিদা পারভীনের জন্ম ১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দের ৩১ ডিসেম্বর নাটোর জেলার সিংড়া থানার শাঔঁল গ্রামে। শাঔঁল হচ্ছে বাংলাদেশের বৃহত্তম সুন্দর একটা গ্রাম কলম-এর অংশ। ফরিদা পারভীনের বাবা প্রয়াত দেলোয়ার হোসেন পেশায় ছিলেন সাধারণ চিকিৎসক। মা রৌফা বেগম। ফরিদা পারভীনের স্বামী প্রখ্যাত গীতিকার ও কন্ঠশিল্পী আবু জাফর।
ফরিদা পারভীনের কর্মজীবন সঙ্গীতময়। শুধু লালনের গান নয়, তিনি একাধারে গেয়েছেন আধুনিক এবং দেশাত্মবোধক গান। ফরিদা পারভীনের গাওয়া আধুনিক, দেশাত্মবোধক কিংবা লালন সাঁইয়ের গান সমান ভাবেই জনপ্রিয়। তার জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে ‘এই পদ্মা, এই মেঘনা, এই যমুনা-সুরমা নদীর তটে’ ‘তোমরা ভুলেই গেছো মল্লিকাদির নাম’, ‘নিন্দার কাঁটা যদি না বিঁধিল গায়ে প্রেমের কী সাধ আছে বলো’, ‘খাঁচার ভিতর’, ‘বাড়ির কাছে আরশি নগর’ ইত্যাদি।[২] তার অ্যালবামের মধ্যে রয়েছে-
১৯৭৬ খ্রিষ্টাব্দে অচিন পাখি’ নামে একটি লংপ্লে রেকর্ড বের হয়। স্পন্সার করে ‘শ্রোতার আসর’ বর্তমানে এসিআই কোম্পানি
ডন কোম্পানি থেকে ‘লালনগীতি’
সারগাম থেকে ‘লালনের গান’
দোয়েল প্রডাক্টস থেকে ‘দেশাত্মবোধক/আধুনিক/লালন’ মিলে একটা ক্যাসেট
আরশিনগর-এর ব্যানারে লালনের গান ‘আমারে কি রাখবেন গুরু চরণে’
বেঙ্গল ফাউন্ডেশন থেকে ‘সময় গেলে সাধন হবে না’
আবুল উলাইয়ার পরিবেশনায় ‘আশা পূর্ণ হলো না’
‘লাইভ কনসার্ট ইন জাপান’ নামে একটা এ্যালবাম বের করছে আবুল উলাইয়া
তোমার মতো দয়াল বন্ধু আর পাবো না
সমুদ্রের কূলেতে বসে
হিট সঙস অব ফরিদা পারভীন : মিলেনিয়াম /বহুদিন হলো ভেংগেছি ঘর
লাইভ কনসার্ট ইন ফ্রান্স (বাজারে আসছে)
অর্জন
সম্পাদনা।
তিনি ফুকুওয়াকা এশিয়ান কালচারাল প্রাইজ ২০০৮ এ সেরা সঙ্গীতের জন্য পুরষ্কৃত হন। এছাড়া একুশে পদক ১৯৮৭ এবং জাতীয় চলচ্চিত্র পদকে ছায়াছবির গানে সেরা কন্ঠদানকারী হিসাবে ১৯৯৩ সালে পদক পেয়েছেন।সিটিসেল-চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ডস ও অনন্যা শীর্ষ দশ পুরস্কার পেয়েছেন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ